১১ নভেম্বর আইওএস ও অ্যান্ড্রয়েড উভয় প্ল্যাটফর্মে একযোগে অভিষেক হবে ‘পাবজি: নিউ স্টেট’-এর। প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট ভার্জ বলছে, দুইশ’টি দেশে ১৭টি ভাষায় উন্মুক্ত হতে যাচ্ছে গেইমটি।

পাবজি সিরিজের জন্য ‘নিউ স্টেট’-কে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসেবেই দেখছেন সংশ্লিষ্টরা। পাবজির ডেস্কটপ সংস্করণের অভিষেক ২০১৭ সালে, মুক্তির পরপরই ব্যাটল রয়্যাল ফর্মুলাকে গেইমারদের মধ্যে জনপ্রিয় করে তোলে এই গেইমটি। ২০১৮-তে এর মোবাইল সংস্করণ আরও বড় সাফল্য পায় মোবাইল গেইমিং বাজারে। কিন্তু, পাবজি মোবাইলের প্রথম সংস্করণের নির্মাণকাজ করেছিল চীনের প্রতিষ্ঠান টেনসেন্ট, ডেস্কটপ সংস্করণের নির্মাতা পাবজি স্টুডিও নয়। ভার্জ জানিয়েছে, ‘পাবজি: নিউ স্টেট’-এর পেছনে কাজ করেছেন পাবজি স্টুডিওর নির্মাতারাই।

মোবাইল গেইমের বাজারে নিজেদের ‘প্রথম অভিযান’ প্রসঙ্গে পাবজি স্টুডিও জানিয়েছে, ‘চিটিং’ ঠেকাতে কঠোর নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা যোগ হয়েছে গেইমটিতে। পরবর্তীতে উদ্বুদ্ধ কোনো জটিলতা মোকাবেলায় মোবাইল গেইমার কমিউনিটির উপর সজাগ দৃষ্টি রাখার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

ডেস্কটপ ও মোবাইল, পাবজির উভয় সংস্করণেই পেশাদার ও সৌখিন গেইমারদের মাথা ব্যথার একটি বড় কারণ ছিল ‘চিটার’দের দৌরাত্ব। বছরের শুরুতেই প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট মাদারবোর্ড জানিয়েছিল, পাবজির জন্য কেবল চিট কোড বানিয়ে সাত কোটি ডলার কামিয়েছিল একটি দল।

ভার্জ জানিয়েছে, পাবজির প্রথম কিস্তির মতো নতুনটিও মাল্টিপ্লেয়ার ব্যাটল রয়্যাল ফর্মুলা কেন্দ্রিক হবে। ‘নিউ স্টেট’ উন্মোচনের একদম শুরু থেকেই চারটি ম্যাপে খেলার সুযোগ পাবেন একজন গেইমার। এরমধ্যে বহুল জনপ্রিয় ‘ইরাঙ্গল’ ম্যাপটিও থাকবে বলে নিশ্চিত করেছে পাবজি স্টুডিও। পাশাপাশি নিয়মিত নতুন কন্টেন্ট যোগ করার আশ্বাসও দিয়েছেন নির্মাতারা।

জানুয়ারি মাসে ব্লুমবার্গ জানিয়েছিলো, মোবাইল প্ল্যাটফর্মের বাইরে পিসি বা কনসোলের জন্য পাবজি সংশ্লিষ্ট আরেকটি গেইমটি বাজারজাত করার পরিকল্পনা করেছে প্রকাশক ক্র্যাফটন। ২০২২ সাল নাগাদ পাবজির ঘরানার একটি ‘সার্ভাইভাল হরর’ গেইম আসার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছে ভার্জ। হরর গেইমটির পটভূমি হবে বর্তমান সময় থেকে তিনশ’ বছর ভবিষ্যতে।